Sun. Jul 12th, 2020

৯ই ফেব্রুয়ারী থেকে ২৫শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত চলবে নবীন মানুয়া নিমতলা ইয়ং স্টার ক্লাবের সরস্বতী পূজা – বিস্তারিত জানুন

1 min read

শ্রী শ্রী সর্ব্বজনীন সরস্বতী পূজা

বাৎসরিক অনুষ্ঠান ২০১৯


পরিচালনায়: নবীন মানুয়া নিমতলা ইয়ং স্টার ক্লাব

স্থান: ক্লাব প্রাঙ্গণ, সীতাপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর

Saraswati Devi
প্রতিযোগিতা সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য নিচে দেওয়া রয়েছে।

প্রতিযোগিতার অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম ডাউনলোড করুন –

Button

:: অনুষ্ঠান সূচী ::

২৫শে মাঘ ১৪২৫(ইং ৯ই ফেব্রুয়ারী ২০১৯ ) শনিবার:
সকাল ১০টায় : শোভাযাত্রা সহকারে প্রতিমা আনয়ণ।

২৬শে মাঘ ১৪২৫(ইং ১০ই ফেব্রুয়ারী ২০১৯) রবিবার:
সকাল ৮টায়: মায়ের ঘটস্থাপন, পূজারম্ভ ও পুস্পাঞ্জলি।
সন্ধ্যা ৭টায়: মায়ের আরতি ও ক্ষীর প্রসাদ বিতরণ।

২৭শে মাঘ ১৪২৫(ইং ১১ফেব্রুয়ারী ২০১৯) সোমবার:
সন্ধ্যা ৭ টায়: মায়ের আরতি ও লুচি ভোগ বিতরণ।

২৮শে মাঘ ১৪২৫(ইং ১২ই ফেব্রুয়ারী ২০১৯) মঙ্গলবার:
সকাল ১১টায়: মায়ের ভোগ নিবেদন।

৮ই ফাল্গুন ১৪২৫(ইং ২১শে ফেব্রুয়ারী ২০১৯) বৃহস্পতিবার:
সকাল ৮টায় : অংকন প্রতিযোগিতা।
‘ক’ বিভাগ , বিষয়- নির্মল বাংলা/স্বচ্ছ ভারত(ষষ্ঠ শ্রেণীর পর্যন্ত)।
‘খ’ বিভাগ, বিষয়- একটি মনোরম প্রাকৃতিক দৃশ্য (সপ্তম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত)।
উভয় ক্ষেত্রে কেবলমাত্র কাগজ সরবরাহ করা হবে।

সকাল ৯টায়: মেহেন্দি আঁকা প্রতিযোগিতা।
নিজে নিজের হাতে বা অন্য কারো হাতে আঁকতে হবে।
হাতে আগে থেকে কোনো ড্রয়িং করে রাখা যাবে না বা কোন রকম ডাইস ব্যবহার করা যাবে না।
সমস্ত সরঞ্জাম নিজেকে নিয়ে আসতে হবে।

সকাল ১০টায় : কনে সাজানো প্রতিযোগিতা।
একটি মেয়েকে বিয়ের সাজে সাজাতে হবে।
সমস্ত সরঞ্জাম নিজেকে নিয়ে আসতে হবে। প্রতিযোগিতা শুরু আগে কেবলমাত্র শাড়ি পড়ানোর সুযোগ দেওয়া হবে। বাকি সমস্ত মেকআপ প্রতিযোগিতার মধ্যেই করতে হবে।

বিকেল ৩টায়: স্থানীয় অনান্য ক্রীড়া প্রতিযোগিতা।
সন্ধ্যা ৭টায়: স্থানীয় শিল্পীদের নিয়ে নৃত্য ও সংগীতানুষ্ঠান।
রাত্রি ৯টায়: নারায়ণ সেবা।


৯ই ফাল্গুন ১৪২৫(ইং ২২শে ফেব্রুয়ারী ২০১৯) শুক্রবার:
সকাল ১০টায়: স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির ও বিনা ব্যায়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
উদ্বোধক- মাননীয়া মমতা ভূঞ্যা -বিধায়ক, পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

বিকেল ৩টায়: স্থানীয় অনান্য ক্রীড়া প্রতিযোগিতা।
সন্ধ্যা ৭টায়: স্থানীয় শিল্পীদের নিয়ে সংগীত পরিবেশন।
রাত্রি ৮টায়: স্থানীয় শিশু শিল্পীদের নিয়ে উপস্থিত হবে গীতিনাট্য” ভূষন্ডীর মাঠ”, পরিবেশনায়: গজগামিনী নৃত্য ও নাট্য সংস্থা।
রাত্রি ৯টায়: মায়ের ভোগ বিতরণ।

১০ই ফাল্গুন ১৪২৫(ইং ২৩শে ফেব্রুয়ারী ২০১৯) শনিবার:
দুপুর ২টায়: সংগীত প্রতিযোগিতা।
‘ক’ বিভাগ – যে কোন রবীন্দ্র সংগীত ও নজরুলগীতি (ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত)
‘খ’ বিভাগ- যে কোন রবীন্দ্র সংগীত ও নজরুলগীতি অথবা আধুনিক বাংলা গান (সপ্তম-দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত )।
বিকেল ৪টায়: স্থানীয় অনান্য ক্রীড়া প্রতিযোগিতা।
বিকেল ৫টায়: দাদাগিরি অনুকরণে কুইজ প্রতিযোগিতা”বুদ্ধিযুদ্ধ”(ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত), টিমে দুজন করে প্রতিযোগী থাকতে হবে।
সন্ধ্যা ৭টায়: “দিদি নং ১” এর অনুকরণে “সেরা শ্রীমতী”, টিমে দুই জন মহিলা থাকতে হবে।
রাত্রি ৮টায়: জাপানী আলোক সহযোগে ৩:৩০ মিনিট ব্যাপী ম্যাজিক শো ও মন মাতানো নৃত্যানুষ্ঠান।
পরিবেশনায়: ইন্দ্রজাল ও ড্রীমক্যুইন সোস্যাল ড্যান্স ট্রুপ(জাদুকর- এস. কুমার)।
রাত্রি ৯টায় : মায়ের ভোগ বিতরণ।

১১ই ফাল্গুন ১৪২৫(ইং ২৪শে ফেব্রুয়ারী ২০১৯) রবিবার:
কাল ৯টায়: আবৃত্তি প্রতিযোগিতা।
‘ক’ বিভাগ, বিষয়- যে কোন কবিতা(ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত)
‘খ’ বিভাগ, বিষয়- যে কোন কবিতা ( সপ্তম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত)।
উভয় ক্ষেত্রে প্রতিযোগীদের কবিতার অনুলিপি সঙ্গে আনতে হইবে।
সকাল ১১টায়: যেমন খুশি সাজো প্রতিযোগিতা (সর্বসাধারণের জন্য)।
দুপুর ২টায়: নৃত্য প্রতিযোগিতা।
‘ক’ বিভাগ, বিষয়- যে কোন রবীন্দ্রনৃত্য(ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত)
‘খ’ বিভাগ, বিষয়- যে কোন রবীন্দ্রনৃত্য বা রুচিশীল নৃত্য (সপ্তম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত)।
উভয় ক্ষেত্রে প্রতিযোগীদের গানের সিডি বা মেমোরি কার্ড অবশ্যই সঙ্গে আনতে হইবে।
বিকেল ৫টায়: “দাদাগিরি” অনুকরণে কুইজ প্রতিযোগিতা ‘বুদ্ধিযুদ্ধ’ ,(সর্বসাধারণের জন্য)।
সন্ধ্যা ৭:৩০টায়: পুরস্কার বিতরণী সভা।
রাত্রি ৮টায়: ডবল স্টেজে, জাপানী আলোয়, ডিজিটাল সাউন্ডে ৩:৩০মিনিট ব্যাপী গানের জমজমাট নৃত্য ও সংঙ্গীতানুষ্ঠান। পরিবেশনায়: ‘স্বপ্নতরী ড্যান্স ট্রুপ’।
রাত্রি ৯টায়: মায়ের ভোগ বিতরণ।

১২ই ফাল্গুন ১৪২৫( ইং ২৫শে ফেব্রুয়ারী ২০১৯) সোমবার:
বিকেল ৪টায়: । প্রতিমা নিয়ে শোভাযাত্রা।
রাত্রি ১০টায় : মায়ের কনকাঞ্জলি।
রাত্রি ১১টায় : বাদ্যি- বাজনা ও আতসবাজি সহকারে প্রতিমা নিরঞ্জন।

সমস্ত প্রতিযোগিতার প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় স্থানাধীকারীদের আকর্ষনীয় পুরস্কার ও সন্মানে ভূষিত করা হবে।
যেমন খুশি সাজো ও ক্যুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী অসফল প্রতিযোগীদের জন্য রয়েছে স্বান্তনা পুরস্কার।


:: প্রতিযোগিতার বিবরণ ::


প্রতিযোগিতার  নাম গুলো ওপরে অনুষ্ঠান সূচীর মধ্যে দেওয়া রয়েছে।

প্রতিযোগিতার নিয়মাবলী :

  1. প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য সমস্ত প্রতিযোগীকে যথাযথ ভাবে পূরণ করা আবেদনপত্র আগামী ১৯/০২/২০১৯ তারিখের মধ্যে অবশ্যই জমা দিতে হইবে।
  2. প্রয়োজনে কোন প্রতিযোগিতায় প্রতিযোগীকে অডিশন নেওয়া হতে পারে সেক্ষেত্রে অডিশনের তারিখ ও সময় যথাসময়ে জানিয়ে দেওয়া হবে।
  3. সংগীত প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে প্রতিযোগীকে তবলা বাদক সঙ্গে আনিতে হইবে অনথায় কতৃপক্ষের ব্যবস্থা মানিয়ে লইতে হইবে।
  4. সমস্ত প্রতিযোগীকে নির্দিষ্ট প্রতিযোগিতার ৩০মিনিট পূর্বেই উপস্থিত থাকতে হবে।
  5. সমস্ত প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে বিচারকের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলিয়া মানিয়া লইতে হইবে।
  6. ‘ক’ বিভাগ ও ‘খ’ বিভাগ -এর প্রতিযোগীকে বয়সের প্রমাণপত্র আনিতে হইবে।
  7. ক্যুইজ এবং সেরা শ্রীমতি প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে দুটি পৃথক ফর্ম পূরণ করতে হবে। এবং ফর্ম দুটি একসাথে জুড়ে দিতে হবে।
  8. স্থানীয় প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে খেলার নামগুলি ঐ দিনই জমা করা হবে এবং খেলা শুরুর কিছুক্ষণ আগে নেওয়া হবে।
  9. হোয়াটসঅ্যাপ নাম জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে ফর্মের বিষয়গুলো যথাযথভাবে উল্লেখ করুণ। হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বার: ৭৩৬৩৮৮৩৩১১ / ৯০৮৩১৬৪৯৩৪
  10. অন্যান্য নিয়মাবলী জানতে ফোন করুন এই মোবাইল নাম্বারে- ৯৭৩২৯৪৬৮৬৫

প্রতিযোগিতার অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম ডাউনলোড করুন –


আবেদনপত্র সংগ্রহ ও জমা দেওয়ার স্থান:
  1. সোনার বাংলা- সীতাপুর বাজারপাড়া
  2. রাধেশ্যম খাঁড়ার সাইকেল দোকান – নবীন মানুয়া হাট
  3. সমরদার টিউশান- সীতাপুর লক্ষীতলা
  4. দাস অটো (রমেশ দাসের মোটর সাইকেল গ্যারেজে)- কামারঘাট, পলাশপাই।
  5. পাওয়ার হাউস- প্রদ্যুৎ সাঁতরা, লক্ষীকুন্ডু।
  6. ভৌমিক ইলেকট্রনিক্স- অনুকুল ভৌমিক, সীতাপুর কালিতলা।
সমস্ত প্রতিযোগিতার প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় স্থানাধীকারীদের আকর্ষনীয় পুরস্কার ও সন্মানে ভূষিত করা হবে।
যেমন খুশি সাজো ও ক্যুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী অসফল প্রতিযোগীদের জন্য রয়েছে স্বান্তনা পুরস্কার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *